Home আইন আদালত ধর্ষণে জন্ম নেয়া কন্যার বিয়ে পর্যন্ত ভরণ-পোষণ রাষ্ট্রকে বহনের নির্দেশ

ধর্ষণে জন্ম নেয়া কন্যার বিয়ে পর্যন্ত ভরণ-পোষণ রাষ্ট্রকে বহনের নির্দেশ

5
0
SHARE

বরিশালের গৌরনদী উপজেলার বাটাজোর ইউনিয়নের বছার গ্রামের এক কিশোরীকে অপহরণ করে একাধিকবার ধর্ষণের দায়ে আসামি সোহাগ চাপরাশীকে দুটি ধারায় যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। একই সঙ্গে ১ লাখ টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরো ২ বছরের দণ্ড দেওয়া হয়েছে।

অপর একটি ধারায় ১৪ বছরের কারাদণ্ড ও ৫০ হাজার টাকা জরিমানা, অনাদায়ে আরও ১ বছরের কারাদন্ড দেয়া হয়েছে।
দণ্ডাদেশ একই সাথে কার্যকর হওয়ায় আসামিকে যাবজ্জীবন কারাভোগ করতে হবে। একই আদেশে ধর্ষণে জন্ম নেয়া কন্যা সন্তানের বিয়ের পূর্ব পর্যন্ত ভরণ-পোষণ রাষ্ট্রকে বহনের নির্দেশ দেয়া হয়। সোহাগ একই এলাকার আলমগীর চাপরাশীর ছেলে।

বৃহস্পতিবার বিকেলে আসামির উপস্থিতিতে বরিশালের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক আবু শামীম আজাদ এই রায় ঘোষণা করেন।

ট্রাইব্যুনালের বেঞ্চ সহকারী আজিবর রহমান জানান, ২০১০ সালের ২১ মার্চ বছার গ্রামের চন্দ্রহার কেয়ার মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণীর ছাত্রীকে স্কুলে যাওয়ার পথে অপহরণ করে সোহাগ। এরপর তাকে বিভিন্ন স্থানে নিয়ে একাধিকবার ধর্ষণ করে সে। পরবর্তীতে কিশোরী বাড়ি ফিরে আসে। এরপর ধর্ষণে কিশোরী অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়লে বিয়ের জন্য চাপ দেয়া হয়। কিন্তু সোহাগ বিয়েতে অপারগতা প্রকাশ করলে একই বছরের ১ এপ্রিল ধর্ষিতার মা বাদী হয়ে থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। মামলা চলাকালীন সময় কিশোরী একটি কন্যা সন্তান জন্ম দেয়। ২২ এপ্রিল একমাত্র আসামি সোহাগকে অভিযুক্ত করে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা গৌরনদী মডেল থানার এসআই আসাদুল হক আদালতে অভিযোগপত্র জমা দেন। পরে ট্রাইব্যুনালে ৫ জনের সাক্ষ্য গ্রহণ শেষে বিচারক ওই রায় দেন।