Home অন্যান্য লড়াইয়ে ৭৫৮ প্রার্থী: ঢাকা দুই সিটি নির্বাচনের প্রচার শুরু আজ

লড়াইয়ে ৭৫৮ প্রার্থী: ঢাকা দুই সিটি নির্বাচনের প্রচার শুরু আজ

47
0
SHARE

ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে মেয়র পদে কেউই প্রার্থিতা প্রত্যাহার করেননি। ফলে আওয়ামী লীগ, বিএনপি ও জাতীয় পার্টিসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের ১৩ প্রার্থী চূড়ান্ত প্রতিদ্বন্দ্বিতায় রয়েছেন।

তবে দুই সিটিতে সাধারণ ও সংরক্ষিত কাউন্সিলর পদ থেকে ২৬৮ জন প্রার্থিতা প্রত্যাহার করেছেন। এতে সংরক্ষিত ওয়ার্ডসহ ১৭২ পদের বিপরীতে ৭৪৫ জন কাউন্সিলর প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। সব মিলিয়ে ভোটের চূড়ান্ত লড়াইয়ে থাকলেন ৭৫৮ প্রার্থী।

বৃহস্পতিবার ছিল প্রার্থিতা প্রত্যাহারের শেষ দিন। এদিন যেসব প্রার্থী মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করেছেন, তাদের অধিকাংশই আওয়ামী লীগ ও বিএনপির বিদ্রোহী প্রার্থী ছিলেন। তবে এখনও বেশ কয়েকজন কাউন্সিলর প্রার্থী দলীয় সিদ্ধান্ত উপেক্ষা করে নির্বাচনী মাঠে রয়ে গেছেন।

এদিকে আজ শুক্রবার প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীদের মধ্যে প্রতীক বরাদ্দ দেয়া হবে। রাজধানীর এনআইএলজি মিলনায়তনে ঢাকা উত্তর সিটির এবং গোপীবাগে সাদেক হোসেন খোকা কমিউনিটি সেন্টারে ঢাকা দক্ষিণ সিটির মেয়র ও কাউন্সিলর প্রার্থীদের মধ্যে প্রতীক বরাদ্দ দেবেন রিটার্নিং কর্মকর্তারা।

এরপরই শুরু হবে আনুষ্ঠানিক প্রচার। আওয়ামী লীগ প্রার্থীদের মধ্যে ঢাকা উত্তরের মো. আতিকুল ইসলাম উত্তরা কেন্দ্রীয় জামে মসজিদে জুমার নামাজ আদায় করে প্রচারে নামবেন। আর ঢাকা দক্ষিণে ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস ডেমরার আমুলিয়া মডেল টাউন থেকে প্রচার শুরু করবেন।

এর আগে সকালে দুই প্রার্থী ধানমণ্ডির ৩২ নম্বরে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানাবেন তারা। অপরদিকে বিএনপি প্রার্থীদের মধ্যে ঢাকা উত্তরে তাবিথ আউয়াল উত্তরা সাত নম্বর সেক্টরে জুমার নামাজ আদায় করার পর প্রচার শুরু করবেন। দক্ষিণে প্রকৌশলী ইশরাক হোসেন প্রতীক পাওয়ার পর প্রয়াত বাবা সাবেক মেয়র সাদেক হোসেন খোকার কবর জিয়ারত করে প্রচারে নামবেন।

এদিকে দুই রিটার্নিং কর্মকর্তার দফতর জানিয়েছে, ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে কাউন্সিলর পদে ১২৩ জন প্রার্থিতা প্রত্যাহার করেছেন। এর মধ্যে ১২ জন সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর এবং ১১১ জন সাধারণ কাউন্সিলর প্রার্থী।

এই সিটিতে মেয়র পদে ৬ জন, সংরক্ষিত কাউন্সিলরের ১৮টি পদে ৭৭ জন ও সাধারণ ৫৪টি ওয়ার্ডের বিপরীতে ২৫১ জন অর্থাৎ ৩৩৪ জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। যদিও মনোনয়নপত্র দাখিল করেছিলেন ৪৭০ জন।

এর মধ্যে কয়েকজনের প্রার্থিতা বাছাইয়ে বাতিল হয়। উত্তরে চূড়ান্ত লড়াইয়ে মেয়র পদে আছেন- আওয়ামী লীগের মো. আতিকুল ইসলাম, বিএনপির তাবিথ আউয়াল, প্রগতিশীল গণতান্ত্রিক দলের (পিডিপি) শাহীন খান, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের শেখ মো. ফজলে বারী মাসউদ, ন্যাশনাল পিপলস পার্টির (এনপিপি) মো. আনিসুর রহমান দেওয়ান এবং বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টির আহাম্মদ সাজেদুল হক।

অপরদিকে ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে ২০ জন সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর ও ১২৫ জন সাধারণ কাউন্সিলর প্রার্থী তাদের প্রার্থিতা প্রত্যাহার করেছেন বলে রিটার্নিং কর্মকর্তা মো. আবদুল বাতেন জানিয়েছেন।

এ সিটির মেয়র পদে সাতজন, ২৫টি সংরক্ষিত ওয়ার্ডে ৮২ জন ও ৭৫টি সাধারণ ওয়ার্ডে ৩৩৫ জন মোট ৪২৪ জন চূড়ান্ত লড়াইয়ে মাঠে থাকলেন। যদিও এ সিটিতে মোট ৫৬৯ জন মনোনয়নপত্র দাখিল করেছিলেন।

বেশ কয়েকজনের প্রার্থিতা বাছাইয়ে বাদ পড়েছে। এ সিটিতে মেয়র পদে লড়ছেন- আওয়ামী লীগের ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস, বিএনপির ইঞ্জিনিয়ার ইশরাক হোসেন, জাতীয় পার্টির হাজী মোহাম্মদ সাইফুদ্দিন মিলন, গণফ্রন্টের আবদুস সালাম সুজন, ন্যাশনাল পিপলস পার্টির বাহারানে সুলতান বাহার, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের মো. আবদুর রহমান ও বাংলাদেশ কংগ্রেসের আখতারুজ্জামান ওরফে আয়াতুল্লাহ।

সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে আলাপ করে জানা গেছে, মেয়র পদে দলীয় প্রতীকে ও কাউন্সিলর পদে নির্দলীয় প্রতীকে ঢাকার দুই সিটিতে ভোট হবে। বড় দুই দল আওয়ামী লীগ ও বিএনপি কাউন্সিলর প্রার্থী সমর্থন দেয়ায় এবার নির্বাচনে প্রার্থী সংখ্যা কমে গেছে।

ঢাকা উত্তর সিটির ৩১ নম্বর ওয়ার্ডের আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সম্পাদক মো. ওবায়দুল হক কাউন্সিলর পদে প্রার্থিতা প্রত্যাহার করে বলেন, দল আমাকে মনোনয়ন দেয়নি। আমি দলীয় প্রার্থীর পক্ষে সমর্থন দিয়ে নির্বাচন থেকে সরে গেলাম।

এক প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, আমাদের ভয় দেখিয়ে নির্বাচন থেকে সরানোর শক্তি কারও নেই। একই সিটির ৩০ নম্বর ওয়ার্ড বিএনপি সভাপতি হাজী মো. জয়নাল আবেদীনও প্রার্থিতা প্রত্যাহার করেন। তিনি বলেন, দলীয় মনোনয়ন না পাওয়ায় নির্বাচন থেকে প্রার্থিতা প্রত্যাহার করে নিলাম।

ঢাকা উত্তর সিটির রিটার্নিং কর্মকর্তা মো. আবুল কাসেম বলেন, প্রার্থীরা নিজ থেকে মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করেছেন। তবে কেউ চাইলে দলীয় সমর্থনের বাইরেও স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করতে পারেন, সেক্ষেত্রে তার প্রার্থিতা বৈধ। তিনি আরও বলেন, নির্বাচন একটি উৎসব। আমরা চাই না এর মধ্যে কেউ সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ুক। আমি সবাইকে আচরণবিধি মেনে নির্বাচনে প্রচারে অংশ নিতে আহ্বান জানাই।

এদিকে ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের কাউন্সিলর পদে সব ওয়ার্ডে একক প্রার্থী নিশ্চিত করতে পারেনি বড় দু’দল। আওয়ামী লীগ ও বিএনপির কেন্দ্রীয় ও নগর নেতাদের তৎপরতায় কিছু ওয়ার্ডে বিদ্রোহী প্রার্থী মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করেছে। তবে বেশ কয়েকটি ওয়ার্ডেই দু’দলে রয়ে গেছে একাধিক প্রার্থী।

দলের সিদ্ধান্ত অমান্য করে যারা বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছেন, তাদের ব্যাপারে কঠোর হচ্ছে দু’দলই। বিদ্রোহীদের বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেয়ার কথা জানিয়েছে উভয় দলের নীতিনির্ধারকরা।

বিদ্রোহী প্রার্থীর বিষয়ে জানতে চাইলে উত্তরের নির্বাচন পরিচালনা কমিটির সদস্য সচিব ও ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এসএম মান্নান কচি বলেন, দলের সিদ্ধান্তের বাইরে যারা প্রার্থী হয়েছিলেন, তাদের আমরা বুঝিয়েছি।

অনেকেই প্রার্থিতা প্রত্যাহার করেছেন। শেষ পর্যন্ত বিদ্রোহী প্রার্থী থাকলে তাদের বিরুদ্ধে কী ধরনের ব্যবস্থা নেয়া হবে জানতে চাইলে তিনি বলেন, কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সঙ্গে আলোচনা করে এ বিষয়ে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

বিএনপির কাউন্সিলর বাছাই সংক্রান্ত মনোনয়ন বোর্ডের সমন্বয়ক ও দলের ভাইস চেয়ারম্যান মোহাম্মদ শাহজাহান বলেন, আমরা চেষ্টা করেছি প্রতিটি ওয়ার্ডে একক প্রার্থী দেয়ার জন্য। তবে কোনো কোনো ওয়ার্ডে বিদ্রোহী প্রার্থী রয়েছে। তাদের ব্যাপারে কী ব্যবস্থা নেওয়া হবে, তা দলের স্থায়ী কমিটি সিদ্ধান্ত নেবে।

আওয়ামী লীগ : দুই সিটি কর্পোরেশনে আওয়ামী লীগের বেশকিছু ওয়ার্ডে বিদ্রোহী প্রার্থী রয়েছেন। ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের ৩নং ওয়ার্ডে আওয়ামী লীগের প্রার্থী পল্লবী থানা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি মো. জিনাত আলী মাদবর।

এই ওয়ার্ডে বিদ্রোহী হিসেবে প্রার্থী হয়েছেন বর্তমান কাউন্সিলর ও ঢাকা মহানগর উত্তর যুবলীগের সহসভাপতি কাজী জহিরুল ইসলাম মানিক। এ বিষয়ে জানতে চাইলে বৃহস্পতিবার বিকালে বলেন, আমি নির্বাচন করব। দলও আমাকে সমর্থন দেবে। এলাকার মানুষও আমার সঙ্গে রয়েছে।

৫নং ওয়ার্ডে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন দেওয়া হয়েছে বর্তমান কাউন্সিলর আবদুর রউফ নান্নুকে। পল্লবী থানা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক জুয়েল রানা এই ওয়ার্ডে বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছেন। জানতে চাইলে তিনি বলেন, গতবারও আমাকে বসিয়ে দেয়া হয়েছিল। কিন্তু এবার সাধারণ মানুুষের চাপে আমাকে নির্বাচন করতেই হবে।

৬নং ওয়ার্ডে রূপনগর থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সালাউদ্দিন রবিনকে আওয়ামী লীগের সমর্থন দেয়া হয়েছে। ঢাকা মহানগর উত্তর যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক তাইজুল ইসলাম চৌধুরী বাপ্পিও এই ওয়ার্ডে নির্বাচন করবেন। জানতে চাইলে বাপ্পি বলেন, আমি নির্বাচন করব। আমার জন্য দোয়া করবেন।

বিএনপি : দুই সিটি কর্পোরেশনে বিএনপিরও বেশকিছু ওয়ার্ডে বিদ্রোহী প্রার্থী রয়েছেন। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, উত্তর সিটি কর্পোরেশনের ৫১ নম্বর ওয়ার্ডে মো. আফাজ উদ্দিনকে সমর্থন দেয় বিএনপি।

এ ওয়ার্ডে স্বেচ্ছাসেবক দলের নেতা মোস্তাক কামাল হৃদয়ও বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছেন। ৩ নম্বর ওয়ার্ডে হাজী আবু তৈয়বকে সমর্থন দেয় বিএনপি। এ ওয়ার্ডে ছাত্রদলের নেতা জামাল হোসেন বাপ্পী বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছেন।

৫ নম্বর ওয়ার্ডে আনোয়ার হোসেনকে সমর্থন দেয় বিএনপি। এ ওয়ার্ডে বুলবুল মল্লিক বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছেন। বুলবুল মল্লিক যুগান্তরকে বলেন, স্থায়ী কমিটি আমাকেই সমথন দিয়েছে। পরে তালিকা ঘষামাজা করা হয়েছে। আমিই এলাকায় বেশি জনপ্রিয় এবং বিএনপির প্রার্থী।

দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের ১৩ নম্বর ওয়ার্ডে বিএনপি নেতা আব্বাস উদ্দিন সরকারকে সমর্থন দেয় দল। এ ওয়ার্ডে যুবদলের জুয়েল আহমেদ বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছেন।

১০ নম্বর ওয়ার্ডে বিএনপির ঢাকা মহানগর দক্ষিণের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হারুন অর রশীদকে সমর্থন দেয় দল। এ ওয়ার্ডে আনোয়ার হোসেন বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছেন।

৬৬ নম্বর ওয়ার্ডে আকবর হোসেন ভূঁইয়াকে সমর্থন দেয় দল। এ ওয়ার্ডে বিএনপি নেতা নুরুউদ্দিন মিয়া বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছেন। এছাড়া ১৯ ও ২০নং ওয়ার্ডে উন্মুক্ত রাখা হয়েছে, কাউকে সমর্থন দেয়া হয়নি। এ দুই ওয়ার্ডে তিনজন করে বিএনপি প্রার্থী মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন।

এদিকে বৃহস্পতিবার নয়াপল্টনের দলীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী অভিযোগ করেছেন, মহানগর দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে মহিলা সংরক্ষিত আসন-৬ এর ১৬, ১৭ ও ২১নং ওয়ার্ডে বিএনপি সমর্থিত মহিলা কাউন্সিলর প্রার্থী অধ্যক্ষ রফিকা আফরোজকে আওয়ামী লীগ সমর্থিত মেয়র প্রার্থী ফজলে নুর তাপসের সমর্থকরা জোর করে নির্বাচন কমিশন কার্যালয়ে ধরে এনে প্রার্থিতা বাতিলে বাধ্য করেছেন।

যার প্রত্যাহার করলেন : কাউন্সিরর পদে ঢাকা উত্তরে যে ১২৩ জন তাদের মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করেছেন, তাদের নাম বৃহস্পতিবার জানাতে পারেনি রিটার্নিং কর্মকর্তার দফতর।

তবে ঢাকা দক্ষিণে প্রত্যাহার করা ১৪৫ জনের নাম পাওয়া গেছে।