Home খেলা ১০৩ রানে অলআউট বাংলাদেশ

১০৩ রানে অলআউট বাংলাদেশ

6
0
SHARE

উইকেটে ঘাস ছিল, সঙ্গে ছিল আর্দ্রতাও। স্বাভাবিকভাবেই বাড়তি বাউন্স ও গতি পেয়েছে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বোলাররা। এতে খাবি খেয়েছে বাংলাদেশের ব্যাটাররা। ৬ ব্যাটারই মেরেছেন ডাক।

যা একটু লড়েছেন অধিনায়ক সাকিব আল হাসান। তার ফিফটিতে অ্যান্টিগার স্যার ভিভিয়ান রিচার্ডস স্টেডিয়ামে কোনোরকমে ১০০ পার করেছে সফরকারীরা। ক্যারিবীয়দের বিপক্ষে প্রথম ইনিংসে ১০৩ রান করেছে সাকিব বাহিনী।

ইনিংসের দ্বিতীয় বলেই সাজঘরে ফেরেন ইনফর্ম ওপেনার মাহমুদুল হাসান জয়। রানের খাতায় খুলতে পারেননি তিনি। অফ ফর্মে থাকা নাজমুল হাসান শান্তরও একই পরিণতি হয়।ঘাড় থেকে চাপ কমাতে নেতৃত্ব ছাড়া মুমিনুল হকও বৃত্ত ভাঙতে পারেননি। দুজনই ফেরেন খালি হাতে।

তামিম ইকবাল অবশ্য সতর্ক ছিলেন। তবে হঠাৎ খেই হারান তিনি। ২৯ রান করে প্যাভিলিয়নের পথ ধরেন। লিটন দাসও শুরুটা ভালো করেছিলেন। তবে ধৈর্যের কেলায় হেরে যান তিনি। বিদায় ব্যক্তিগত ১২ রানে। এরপর টেস্টে ডাক পাওয়া নুরুল হাসান সোহানও শূন্য রানে আউট হন।

তাতে দলীয় ৪৫ রানেই ৬ উইকেট হারিয়ে ফেলে বাংলাদেশ। দলের চরম বিপর্যয়ে হাল ধরার চেষ্টা করেন সাকিব।তার সৌজন্যে ৬ উইকেট হারিয়েই ৭৬ রান নিয়ে মধ্যহ্নভোজে যায় টাইগাররা। তবে ফিরেই মেহেদী হাসান মিরাজকে হারায় তারা।

স্বীকৃত ব্যাটার ফেরায় হাত খুলে খেলার চেষ্টা করেন সাকিব। এতে আগ্রাসী ব্যাটিংয়ে ফিফটি তুলে নেন তিনি। তবে এরপরই থামেন বাঁহাতি ব্যাটার। ৬৭ বলে ৬ চার ও ১ ছক্কায় ৫১ রান করেন বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার।

সেই রেশ না কাটতেই শূন্য রানে আউট হন মোস্তাফিজুর রহমান ও খালেদ আমহেদ। শেষ পর্যন্ত ১০৩ রানে গুটিয়ে যায় বাংলাদেশ। এবাদত হোসেন অপরাজিত থাকেন ৩ রানে।

ক্যারিবীয়দের হয়ে জেইডেন সিলেস ও আলজারি জোসেফ নেন ৩টি করে উইকেট। আর কাইল মায়ার্রস ও কেমার রোচ শিকার করেন ২টি করে উইকেট। পরে ব্যাট করতে নেমে বিনা উইকেটে ১০ রান তুলে ফেলে ওয়েস্ট ইন্ডিয়ানরা।