Home জাতীয় ‘খুব শিগগিরই নোবেল পুরস্কার পাবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা’

‘খুব শিগগিরই নোবেল পুরস্কার পাবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা’

6
0
SHARE

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা খুব শিগগিরই নোবেল পুরস্কার পাবেন, দেশের জনগণ সেই দিনটার অপেক্ষায় রয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল।

আজ বুধবার (২২ জুন) বিকেলে জয়পুরহাট সার্কিট হাউজ মাঠে সন্ত্রাস, জঙ্গি ও মাদকবিরোধী সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এই আশার কথা বলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।

তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী আগামী ২৫ তারিখে আমাদের অহংকার পদ্মা সেতু উদ্বোধন করতে যাচ্ছেন। বাংলাদেশ যে পারে, পদ্মা সেতু আমাদের সেই সামর্থ্যের কথা প্রমাণ করে। অনেক বাধা আর ষড়যন্ত্র অতিক্রম করে প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে আমরা স্বপ্নের পদ্মা সেতু নির্মাণ করতে সক্ষম হয়েছি। সেইসঙ্গে ঢাকায় মেট্রোরেল, চট্টগ্রাম বৃহৎ টানেল, কক্সবাজার আন্তর্জাতিক এয়ারপোর্ট হতে যাচ্ছে, এসব কিছুই বাংলাদেশের অর্জন। এসব প্রধানমন্ত্রীর দূরদর্শী নেতৃত্বের কারণে।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রী চেয়েছেন নারীর ক্ষমতায়ন ঘটলেই দেশ এগিয়ে যাবে। তারা পুরুষের পাশাপাশি সমান তালে এগিয়ে যাচ্ছেন বলে দেশ এগিয়ে যাচ্ছে। ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার স্বপ্নও পূরণ হয়েছে প্রধানমন্ত্রীর জন্য। তার নেতৃত্বে আমাদের অর্জন বিশ্ব আজ স্বীকার করেছে। সে কারণে প্রধানমন্ত্রী নোবেল পুরস্কার পেতে পারেন বলে আমরা আশা করতেই পারি।

সমাবেশ শেষে পুলিশের সার্বিক ব্যবস্থাপনায় ১০০ মাদক কারবারিকে স্বাভাবিক জীবনে প্রত্যাবর্তন ও অবৈধ কিডনি পাচার চক্রের প্রতারণার ফাঁদে পড়া ১৫ কিডনিদাতাকে আর্থিক সহায়তা দেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, যারা অসহায় মানুষদের প্রতারণার ফাঁদে ফেলে তাদের শরীরের মূল্যবান অঙ্গ কিডনি কেড়ে নিচ্ছে, সেই চক্র যত বড়ই ক্ষমতাবান হোক তাদের আইনের আওতায় এনে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা করা হবে।

এর আগে দুপুরে সদর উপজেলার চক বরকত পুলিশ ফাঁড়ির নবনির্মিত ভবনের উদ্বোধন ও শহীদ পুলিশ সুপার নজমুল হক পুলিশ লাইন হাইস্কুলের নামকরণ করেন প্রধান অতিথি।

রাজশাহী রেঞ্জ ডিআইজি মো. আব্দুল বাতেনের সভাপতিত্বে সমাবেশে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন জাতীয় সংসদের হুইপ আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের স্থায়ী কমিটির সদস্য অ্যাডভোকেট সামছুল আলম দুদু। এতে জেলা প্রশাসক শরীফুল ইসলাম, পুলিশ সুপার মাছুম আহমেদ ভূঞাসহ বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তা, রাজনৈতিক ও সামাজিক সংগঠনের নেতারা উপস্থিত ছিলেন।